লাইফস্টাইল

নারীর ঠোঁটের রহস্য!

ডেস্ক নিউজঃ প্রতিদিনের সাজগোজের লিস্টে লিপস্টিক একটি খুবই কমন আইটেম। চট জলদি নিজের লুকস আকর্ষণীও  করতে লিপস্টিকের ব্যবহার খুবি অন্যন । তাই টেবিল, ব্যাগ থেকে শুরু করে সবকিছুতেই তার অবাধ যাতায়াত। এখন বাচ্ছারাও লিপস্টিক ব্যবহার করে সচারাচার । তবে বাচ্ছাদের আগে বড়দের বিষয়ে বলা উচিত। তারাই অনেকে সঠিক ব্যবহার জানেনা।

প্রথমে ঠোঁটে পাউডার লাগিয়ে নিন। তারপর লিপস্টিক লাগান। এরফলে বেশিক্ষণ লিপস্টিক থাকবে। আগে প্রথমে লিপলাইনার বেছে নিন। যে রঙের লিপস্টিক লাগাবেন তার চেয়ে একশেড গাঢ় রঙের লিপলাইনার বেছে নিন। লিপলাইন দিয়ে ঠোঁট আউটলাইন করুন। ঠোঁটের সেন্টার পয়েন্ট থেকে আউটার কর্নারের দিকে লিপলাইনার লাগান। নিচের ঠোঁটে এমনভাবে লিপলাইনার লাগান যাতে ওপরের ঠোঁটের লিপলাইনকে স্পর্শ করে। লিপ ব্রাশ দিয়ে লিপস্টিক লাগাতে পারেন। ঠোঁটের শেপ ভালো বোঝা যাবে। সেন্টার থেকে আউটওয়ার্ড স্ট্রোকে লিপ ব্রাশ লাগান। অতিরিক্ত লিপস্টিক টিস্যুপেপার দিয়ে মুছে নিন। লিপস্টিক না লাগিয়ে শুধু লিপগ্লস লাগাতে চাইলে লিপ ব্রাশ দিয়েই লাগান।

কিরকম শেড আপনাকে মানাবে?
গায়ের রঙ চাপা হলে পিংক বা পিচের মতো হালকা শেডের লিপস্টিক না লাগানোই ভালো। ফ্লুরোসেন্ট কালারও ব্যবহার করবেন না।আপনার গায়ের রঙে হলদে ভাব থাকলে অরেঞ্জ শেডের লিপস্টিক লাগাবেন না। ব্রাউন, কপার, ব্রোঞ্জ, কোরাল, ব্রিক রেডের মতো রঙ বেছে নিন। এগুলো সব ধরনের ত্বকের উপযোগী। যদি রাতে কোন অনুষ্ঠান থাকে তার জন্য ডার্ক রেড ব্যবহার করুন। তবে খুব ডার্ক কালার যেমন ডার্ক মেরুন ব্যবহার করবেন না। ডার্ক রেড, কোরাল, প্লাম, ওয়াইন রেডের মতো রঙ ব্যবহার করতে পারেন।

লিপস্টিক ব্যবহারে আরও আকর্ষণীয় হতে জেনে রাখুন ছোট্ট ৬ টি টিপস –

নারীরা সাজগোজ কতোটা পছন্দ করেন তা বলাই বাহুল্য। প্রায় সকল নারীই নিজেকে একটু আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য নানাধরণের মেকআপ ব্যবহার করে থাকেন। আর মেকআপের মধ্যে অন্যতম উপকরণটি হচ্ছে লিপস্টিক। তবে এই লিপস্টিকের সঠিক ব্যবহার যেমন নারীকে আরও অনেক বেশি আকর্ষণীয় করে তোলে, তেমনই ব্যবহার সঠিক না জানলে অনেক বেশি বিশ্রী দেখায়। আজ জেনে নিন লিপস্টিক ব্যবহারে আরও আকর্ষণীয় হতে ছোট্ট কিছু কার্যকরী টিপস।

১) ত্বকের রঙ এবং বয়স বুঝে নিজের জন্য লিপস্টিকের সঠিক রঙ বাছাই করুন। টকটকে ফর্সা ত্বকের ক্ষেত্রে উজ্জ্বল গোলাপি, কমলা এবং লাল, সাদাটে ফর্সা ত্বকে হালকা গোলাপি, ন্যুড রঙ, বাদামী এবং একটু ন্যাচারাল গোলাপি ধরণের রঙ, উজ্জ্বল শ্যামলা ত্বকের জন্য উজ্জ্বল গোলাপি, হালকা শেডের গোলাপি, উজ্জ্বল লাল রঙ, কমলা, কোরাল এবং শ্যামলা ত্বকের জন্য মেরুন শেড, উজ্জ্বল গোলাপি এবং ব্রাউন রঙের লিপস্টিক মানানসই।

২) গরমকালে কখনোই গ্লসি ধরণের লিপস্টিক ব্যবহার করবেন না। গরমকালের জন্য পারফেক্ট লিপস্টিক হচ্ছে ম্যাট। যদি ম্যাট খুব বেশি পছন্দ না করেন তাহলে সেমি-ম্যাট লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন।

৩) লিপলাইনার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। লিপস্টিক দেয়ার আগে অবশ্যই লিপলাইনার দিয়ে পুরো ঠোঁট এঁকে নিয়ে তবেই লিপস্টিক ব্যবহার করুন। চাইলে লিপলাইনারটিও লিপস্টিকের মতো ব্যবহার করতে পারেন।

৪) লিপস্টিক দেয়া শেষ হলে একটি ব্রাশে পাউডার লাগিয়ে ঠোঁটের উপরে ভালো করে বুলিয়ে নিন। এতে করে লিপস্টিকের উপরের বাড়তি ময়েসচার শুকিয়ে যাবে এবং খুব সহজে লিপস্টিক ছড়াবে না।

৫) ঠোঁট একটু পাউটি অর্থাৎ ভরা দেখাতে লিপস্টিক দিয়েই কারসাজি করতে পারেন। পুরো ঠোঁটে পছন্দের একটু হালকা রঙের লিপস্টিক লাগিয়ে ঠোঁটের কোণার দিকে একই রঙের গাঢ় শেডের লিপস্টিক ব্যবহার করুন। এতে মাঝের অংশ অনেক ভরা দেখাবে ও আকর্ষণীয় লাগবে।

৬) চোখের সাজ গাঢ় হলে কখনোই লিপস্টিকের রঙ গাঢ় করবেন না। হালকা চোখের সাজে গাঢ় রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করুন। এতে অনেক আকর্ষণীয় দেখাবে।