আর্ন্তজাতিক

হুকুম তামিলের যোগ্য পুতুল পেয়েছে সেনারা : রেহাম

কদিন পরেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারে বসতে যাচ্ছেন ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিতে আসা ইমরান খান। সরকার গড়ার চেষ্টায় ১১৬ আসন পাওয়া তাঁর দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) এখন ছোট দলগুলোর সঙ্গে কথাবার্তা চালাচ্ছে। যে ১৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী জিতেছেন তাঁদের সঙ্গেও কথা চলছে। স্বতন্ত্র ও ছোট দলগুলোকে নিয়ে ম্যাজিক ফিগার হচ্ছে না বলে কিছুটা হলেও চাপে আছে পিটিআই।

আর এরই মধ্যে ইমরানের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার করলেন তাঁর সাবেক দ্বিতীয় স্ত্রী সাংবাদিক রেহাম খান। তিনি বলেছেন, ইমরান আসলে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর হাতের যোগ্য পুতুল। সেনাবাহিনী একজন সুযোগ্য পুতুল খুঁজছিল। ইমরান পুরোপুরিভাবে সেনার সেই ইচ্ছা পূরণ করেছেন। অবশ্য নির্বাচনের আগে রেহামের আত্মজীবনী প্রকাশ হয়েছিল, যাতে ইমরান সম্পর্কে নানা নেতিবাচক খবর বের হয়েছিল।

ভারতের দ্য হিন্দু পত্রিকার সঙ্গে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ইমরান সম্পর্কে রেহাম বলেন, নির্বাচনী প্রচারের সময় ভারতের বিরুদ্ধে সেভাবে মুখ খোলেননি ইমরান। কারণ সেখানে তাঁর অনেক বন্ধু আছেন। এ ছাড়া ভারতে যথেষ্ট জনপ্রিয়ও ইমরান। তাঁর মতে, যদি সত্যিই ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়তে রাজি থাকতেন ইমরান, তাহলে ভারতের সঙ্গে আরো বাণিজ্যিক লেনদেন বাড়াতে উৎসাহী হতেন তিনি। অথচ যখন নওয়াজ শরিফ ভারতের সঙ্গে ব্যাবসায়িক সম্পর্ক বাড়াতে চেয়েছিলেন, তখন ইমরান তাঁকে বিশ্বাসঘাতক বলে সমালোচনা করেছিলেন। এমনকি ভারতকে মোস্ট ফেভার্ড নেশন বা এমএফএনের তকমা দেওয়ারও তীব্র বিরোধিতা করে তা আটকে দেওয়ার মূলে ছিলেন পিটিআইয়ের প্রধান।

রেহামের কটাক্ষ, রাজনীতির অনেক জটিল বিষয় সম্পর্কে ইমরানের কোনো বাস্তব অভিজ্ঞতা নেই। তাই সেনাবাহিনী যেভাবে বলবে, পাকিস্তানের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সেভাবেই চলবেন। ভারতকে নিয়ে তাঁর পররাষ্ট্রনীতি বা চীনের সঙ্গে যৌথ অর্থনৈতিক করিডর নিয়ে নওয়াজ শরিফ যখনই নিজে সিদ্ধান্ত নিতে শুরু করছিলেন, তখনই পাকিস্তানি সেনারা তাঁকে সরিয়ে দেয়। ইমরানকে ইসলামাবাদের মসনদে বসানোর পরিকল্পনা গত প্রায় তিন বছর ধরে করছিল পাকিস্তানের সেনাবাহিনী।

নির্বাচন স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুভাবে হলে এত ভোটে জিততে পারতেন না ইমরান। ভারত হোক বা পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ইমরানকে যা বলবে তিনি ঠিক সেই কাজটিই করবেন, কারণ তাঁর নিজস্ব কোনো আদর্শ নেই। পাকিস্তানের নির্বাচনের আগে রেহামের বই প্রকাশ ইমরানের ভাবমূর্তিতে কোনো দাগ লাগাতে পারেনি। সেই প্রশ্নের জবাবে রেহামের মন্তব্য, উপমহাদেশে এ ধরনের যৌন কেচ্ছা কোনো পুরুষের ভাবমূর্তি কালিমালিপ্ত করতে পারে না। অথচ কোনো মেয়ের সঙ্গে এই ঘটনা ঘটলে ফল হয় ঠিক উল্টো।
সূত্র : পিটিআই

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here