লাইফস্টাইল

সাইবার কাফেতে বিষপান, অতঃপর আইসিইউতে বিয়ে…

দু’জনাতে গভীর প্রেম। কিন্তু কোনো পক্ষের বাবা মা-ই রাজি নয় এমন সম্বন্ধে। একপর্যায়ে তারা বিষপান করে। দুজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়, ভর্তি করানো হয় আইসিইউতে।

ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে যখন দুজন জীবন-মৃত্যুর মাঝখানে লড়াই করছে তখন উভয়ের গুরুজনদের অন্তরে দয়ামায়ার উদ্রেক হয়। এবার তারা রাজি হয়ে যান তাদের বিয়ে দিতে। দুজনের করুণ অবস্থা তাদের এতটাই আবেগতাড়িত করে যে দুজনের বিয়ে দিতে পুরো সুস্থ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষার তরও সইলো না। বিয়ে দিয়ে দেওয়া হলো তাদের আইসিইউতেই। এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের হরিয়ানার হিসার জেলায়।

জনসত্তা.কম জানায়, এই জেলার পিরানওয়ালি গ্রামের বাসিন্দা মিত গুরমুখ সিং (২৩) একই জেলার হিসার শহরের বিদ্যুৎনগরের বাসিন্দা কুসুমের (২২) প্রেমে পড়েন। কুসুমও তাতে সারা দেন। কিন্তু তাদের প্রেমের সুখবর যখন দুঃসংবাদ হয়ে স্বজনদের কানে গেল- উভয় পক্ষই তেড়ে উঠলো। এমন পরিস্থিতিতে যখন পরিবারকে কোনোমতেই রাজি করাতে পারছিল না- বিদ্যুৎনগরের এক সাইবার কাফেতে বসে দুজনেই কীটনাশক পান করেন।

পরে দুজনকেই আশংকাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। গত শনিবার হাসপাতালে যখন চিকিৎসক-নার্সরা সতর্ক অবস্থায় তাদের বাঁচিয়ে তোলার চেষ্টায় রত- তখনি মালা বদল করে দেন তাদের অভিভাবকরা।

জানা গেছে, বিষ পানের পর গুরমুখ তার ভাইকে ফোনে ঘটনা জানান। তার ভাই দ্রুত লোকজন নিয়ে দেবীভবন মন্দিরের পাশের ওই সাইবার কাফেতে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় ভারত হাসপাতালে নিয়ে যান।

গুরমুখ আর কুসুম- দুজনের অভিভাবকরাই জানান, সন্তানদের এমন হালত দেখে তারা আর স্থির থাকতে পারেননি। তাই সেখানেই তাদের বর-কনের পোশাক পরানো হয়। এরপর স্বল্পসংখ্যক আত্মীয় বন্ধু আর হাসপাতালের স্টাফদের উপস্থিতিতে বিয়ের পবিত্র বন্ধনে জড়িয়ে দেওয়া হয় তাদের। তাদের চিকিৎসা এখনো চলছে। তবে হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে, গুরমুখের অবস্থার ক্রমশ উন্নতি হচ্ছে তবে কুসুমকে নিয়ে এখনো আশংকা রয়েছে।

গুরমুখ আর কুসুম দুজনেই হিসার এলাকার ডিএন কলেজের শিক্ষার্থী। দুজনেই এখনো কর্মজীবন শুরু করেননি- তবে তাদের পরিবার এসব এখন আর নজর করছেন না। দুপক্ষই চাইছে তারা সেরে উঠুক।