খেলাধুলা

শ্যুটার তৈরির ব্যর্থতায় বিদায় সোকিচের

পিস্তলে রুপালি নিশানা ফিরিয়েও তিনি পারেননি চাকরি টিকিয়ে রাখতে। কমনওয়েলথ গেমসে অমন রুপালি সাফল্যের পরও মন্টেনেগ্রোর পিস্তল শ্যুটিং কোচ মার্কো সোকিচকে বিদায় করে দিয়েছে শ্যুটিং ফেডারেশন। তাঁর জায়গায় নিয়ে এসেছে কোরিয়ান কোচ কিম ইল ইয়ংকে।

পিস্তল ইভেন্টে দেশের শ্যুটারদের খুব ঝোঁক নেই। পিস্তলে সেরা সময় সেই নব্বইয়ের দশক, ১৯৯০ কমনওয়েলথ গেমসে আতিক-নিনিতে তৈরি হয়েছিল এক সোনার জুটি। উপহার দিয়েছিলেন একটি স্বর্ণ ও একটি ব্রোঞ্জ। দীর্ঘ ২৮ বছর পর গোল্ড কোস্ট কমনওয়েলথ গেমসে পিস্তলে নিশানা খুঁজে পেয়েছেন শাকিল আহমেদ। ৫০ মিটার পিস্তল ইভেন্টে রুপাজয়ী এই শ্যুটারের নেপথ্য কারিগর মার্কো সোকিচ। মন্টেনেগ্রোর এই কোচের অধীনে প্রায় দুই বছর ট্রেনিং করেন শাকিল। কিন্তু অমন সাফল্য উপহার দিয়েও এই কোচ চাকরি টিকিয়ে রাখতে পারেননি! ফেডারেশনের নির্বাহী কমিটি তাঁর পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করেই তাঁকে বিদায় করে দিয়েছে। ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ইন্তেখাবুল হামিদ অপু বলেছেন, ‘তাঁর অধীনে শাকিল রুপা জিতেছে, কৃতিত্ব তাঁরও (সোকিচের) আছে। তবে শাকিল তাঁর হাতে গড়া শ্যুটার নয়।’ এই তরুণ শ্যুটার দুই বছর আগে সবার নজর কাড়েন শিলং-গৌহাটি এসএ গেমসে ১০ মিটার পিস্তলে সোনা জিতে। তখনো কিন্তু বাংলাদেশ শ্যুটিংয়ে সোকিচ অধ্যায় শুরু হয়নি। তাই ইন্তেখাবুল হামিদ সোনা-রুপার হিসাবে না গিয়ে তাঁকে বাদ দেওয়ার মূল কারণটা ব্যাখ্যা করেছেন এভাবে, ‘মূল সমস্যা হলো, সোকিচ পিস্তলে নতুন শ্যুটার তৈরি করতে পারেননি। শাকিলের পেছনে যে আরো তিন-চারজন সম্ভাবনাময় শ্যুটার থাকা উচিত, সেটা নেই আমাদের। দুই বছরেও তিনি উল্লেখ করার মতো কাউকে তৈরি করতে পারেননি। অথচ রাইফেল কোচ ক্লাভসের (ক্রিস্টেনসেন) বেলায় দেখেন, বাকীর পরে অর্ণব-থমাসদের তৈরি করে ফেলেছেন। অর্থাৎ সিনিয়রদের পেছনে আরেকটি গ্রুপ তৈরি হয়ে যাচ্ছে।’

পিস্তল শ্যুটিংয়ে এই পাইপলাইনটা তৈরি করতে পারেননি বলেই মার্কো সোকিচ চাকরি হারিয়েছেন এ মাসে। দুই বছরে তাঁর কাছ থেকে কয়েকজন নতুন পিস্তল শ্যুটার আশা করেছিল ফেডারেশন। ফেডারেশন সম্পাদক রাইফেল ইভেন্টগুলোর মতো পিস্তলের বিভিন্ন ইভেন্টের ওপরও জোর দিচ্ছেন, ‘শ্যুটিংয়ে আমরা ইভেন্টের সংখ্যা বাড়াচ্ছি। ২৫ মিটার রেঞ্জও আমাদের প্রস্তুত হয়ে গেছে। আমরা চাই আরো নতুন শ্যুটার, নতুন প্রতিভা।’ এ জন্য মন্টেনেগ্রোর কোচকে বাদ দিয়ে তারা গত ১৪ জুলাই নিয়ে এসেছে কোরিয়ান পিস্তল কোচ কিম ইল ইয়ংকে। এর আগেও এ দেশে কাজ করেছেন তিনি। ভাষাগত সমস্যা থাকলেও নতুন শ্যুটারদের জন্য কিমকে খুব কার্যকরী মনে করছে ফেডারেশন।