লাইফস্টাইল

শরীর দেখেই যেভাবে বুঝবেন মেয়েটি কুমারী কিনা? (ভিডিওসহ)

বয়স বাড়ার সাথে সাথে সব মানুষেরই চেহারা অর্থাৎ শারীরিক পরিবর্তন হয়। কিন্তু শারীরিক পরিবর্তনই চারিত্রক শুদ্ধতার নিদর্শন নয়। বিশেষত, মেয়েদের ক্ষেত্রে কোন মেয়ে এখনো শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়নি তা বুঝতে পারা কঠিন। তবে কিছু লক্ষণ দেখে অবশ্যই অনুমান করা যায় কুমারী মেয়েদের। যেসব লক্ষণ দেখে ভার্জিন মেয়ে নির্ণয় করবেন তা পাঠকদের জন্য নিচে তুলে ধরা হলো।

ভার্জিন হবার লক্ষণসমূহ-

১. যো*নিঃ

ক. ল্যাবিয়া মেজরা অর্থাৎ বাইরের পাপড়ি প্রায়সম্পূর্ণ ভাবে একসাথে লেগে থাকবে এবং যোনিমুখ দেখা যাবেনা ।

খ. ল্যাবিয়া মাইনরা অর্থাৎ ভিতরের পাপড়িও সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে এবং ল্যাবিয়া মেজরা দিয়ে ঢাকা থাকবে পুরোটাই । ল্যাবিয়া মেজরা না সরালে দেখা যাবেনা ।

গ. হাইমেন অর্থাৎ সতিচ্ছেদ অক্ষত থাকবে । যদিও অনেক কারনেই ছিঁড়ে যেতে পারে ।

ঘ. ল্যাবিয়া মাইনরার নিচের প্রান্ত একত্রে থাকবে ।

ঙ. ক্লাইটরিস খুব ছোট এবং একে আবরণকারী চামড়াওপাতলা হবে ।

চ. যোনিপথ সরু এবং ভিতরের ভাঁজগুলি কমমসৃণ হবে । ভাজ অনেক বেশি হবে।

২. স্তনঃ

ক. স্তন ছোট হবে

খ. চ্যাপ্টা হবে, গোল নয়

গ. দৃঢ় হবে, তুলতুলে নয়

ঘ. নিপলের চারপাশে যে গাঢ় অংশ থাকে তার রঙ গোলাপি থেকে বাদামী রঙের হবে (কম গাঢ় রঙ হবে) এবং এই অংশ আয়তনে ছোট হবে ।

ঙ. নিপলের আকার ছোট হবে ।

৩. সিউডোভারজিনঃ
অনেক সময় অনেক মেয়ের কয়েকবার যৌ*নমিলনের পরেও হাইমেন বা সতিচ্ছেদ অক্ষত থাকে । এদের সিউডোভারজিন বা মিথ্যা ভারজিন বলা হয়। তবে এর হার অনেক কম । এদের অন্য বৈশিষ্ট্যগুলো দিয়ে চিহ্নিত করা যায়।

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন