লাইফস্টাইল

শরীরের ভেতর আরেক শরীর, ফুলে উঠছে বার বার

সাই-ফাই সিনেমাগুলোতে যেমন মানুষের শরীরে পরজীবীর অস্তিত্ব দেখান হয়, বাস্তব জীবনেও দেখা মিলল তেমন দৃশ্য।। মস্কোর ৩২ বছর বয়সী এক নারী সামাজিক মাধ্যমে দেখিয়েছেন সে চিত্র।

তবে রাশিয়ার চিকিৎসাবিজ্ঞান সংক্রান্ত ওয়েবসাইট এনইজিএম.ওআরজিও ওই নারীর কিছু ছতি নিয়ে একটি বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করেছে। এতে বলা হয়েছে, স্টেফিনি মেয়ার্স নামে ওই নারী মস্কোর কাছাকাছি এক গ্রামে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সম্ভবত তখনই মশার কামড়ের মাধ্যমে কোনো পরজীবী তার শরীরে প্রবেশ করে। পরদিন থেকেই তার শরীরে সেটির অস্তিত্বের দেখা মেলে।

প্রথম দিন তার বাঁ চোখের নীচে একটি অংশ ফুলে যায়। এর পাঁচদিন পর তিনি দেখেন তার আক্রান্ত চোখটির চোখের উপরের অংশ ফুলে গিয়েছে। ১০ দিন পরে তাঁর উপরের ঠোঁটটিও ফুলে ওঠে। যে জায়গাটা ফুলে উঠছিল, সেখানে সামান্য চুলকানি ও জ্বালার অনুভূতি হচ্ছিল তার।

তবে শরীরে তেমন কোনো সমস্যা না হলেও এমন অবস্থায় নিশ্চিন্তে বসে থাকেননি স্টেফিনি। দ্রুতই চিকিৎসকের পরামর্শ নেন তিনি। তাদের মুখের বিভিন্ন অংশের ফুলে থাকার ছবি দেখান। পরজীবী সংক্রমণের ব্যাপারটা স্পষ্ট হতেই শল্য চিকিৎসার মাধ্যমে মুক্ত পান তিনি।

চিকিৎসকরা বলেছেন, প্রধানত কুকুর ও অন্যান্য শ্বাপদ জাতীয় প্রাণী এই সংক্রমণের বাহক। পাশাপাশি মশার মাধ্যমেও মানুষের শরীরে প্রবেশ করে এসব পরজীবী।