লাইফস্টাইল

যে কারনে পরিচালক-নায়কের পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতাদের বিছানায়ও যেতে হয়!!

কাজের জন্য কখনও কখনও পরিচালক, প্রযোজক, নায়কের পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গেও বিছানায় যেতে হয়। এবার বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন তেলুগু অভিনেত্রী শ্রী রেড্ডি।

কাস্টিং কাউচের প্রতিবাদ করে টপলেস হয়েছেন তিনি। শরীর থেকে পোশাক সরিয়ে প্রকাশ্য রাস্তায় প্রতিবাদ করেছেন। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিতর্কের ঝড় বইতে শুরু করেছে।

একটি সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে শ্রী রেড্ডি বলেন, নামজাদা এক প্রযোজকের ছেলে তার সাথে অশালীন ব্যবহার করেছেন। স্টুডিওর মধ্যে নিয়ে তার সাথে জোর করে ইজ্জত মেরেছে প্রযোজকের ছেলে। শুধু তাই নয়, টলিউডে (তেলুগু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি) অভিনয় করতে হলে, অভিনেত্রীদের ব্যবহার করা হয় বলেও সরব হন শ্রী।
স্তাব দেওয়া হত, আবার কখনও নগ্ন ভিডিও পাঠানোর কথা বলা হত আবার কখনও তার সঙ্গে চ্যাটের প্রস্তাব দেওয়া হত।

কখনও প্রযোজক, কখনও পরিচালক আবার কখনও কোনও বড় অভিনেতা তাকে ওই ধরনের কুপ্রস্তাব দিতেন বলেও অভিযোগ করেন শ্রী। পাশাপাশি তেলুগু সিনেমার স্টুডিওগুলো সব অসৎ কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়। ওই জায়গাগুলোতে অভিনেত্রীদের শ্লীলতাহানি করা হয় বলেও অভিযোগ করেন শ্রী রেড্ডি।

পাশাপাশি তার আরও অভিযোগ, উত্তর ভারতের একাধিক অভিনেত্রী তেলুগু সিনেমায় কাজ করছেন। তাদের দিয়েই অভিনয় করানো হচ্ছে কারণ যৌনতা নিয়ে তাদের কোনও ছুতমার্গ নেই। জনপ্রিয় পরিচালক কিংবা প্রযোজকদের শয্যাসঙ্গিনী হতেও তারা পিছপা হন না কখনও। আর সেই কারণেই উত্তর ভারতের একাধিক অভিনেত্রীকেই তেলুগু সিনেমায় এখন অভিনয় করতে দেখা যায়।

তেলুগু অভিনেত্রীরা কোনও পরিচালক, প্রযোজকের শয্যাসঙ্গিনী হতে পারেন না বলেই বর্তমানে তারা সেভাবে জায়গা করে নিতে পারছেন না বলেও দাবি করেন শ্রী রেড্ডি। পরিচালক, প্রযোজকরা তেলুগু অভিনেত্রীদের ‘সেক্স ডল’র মতো ব্যবহার করেছেন বলেও অভিযোগ করেন শ্রী।