লাইফস্টাইল

যেখানে লাল শাপলার রাজ্য দেখা যায়

জাতীয় ফুল শাপলা। পানিতে ফোটা এই ফুলটির সৌন্দর্যে মুগ্ধ হতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই ঘুরে আসতে হবে বরিশালের সাতলা গ্রাম থেকে। সেখানে সুবিস্তৃত বিল মিলেছে অবারিত দিগন্তে। সেই সুবিশাল বিলকে অলঙ্কৃত করেছে লাল শাপলার সমারোহ। রাস্তার দু’পাশের বিলে ফুটে আছে শাপলা আর সেই বিলের ওপারে ঘন সবুজের নয়নাভিরাম সৌন্দর্য। ঠিক যেন ‘সবুজের বুকে লাল’। এ যেন বাংলাদেশেরই প্রতিচ্ছবি।

এমনই সৌন্দর্যের দেখা মিলবে বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার সাতলা গ্রামে। মনোরম সবুজ এই গ্রামের সৌন্দর্য বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে লাল শাপলা। কেউ কেউ তো এই গ্রামকে ‘শাপলার স্বর্গরাজ্য’ বলেও অভিহিত করে থাকেন। তবে ‘সাতলা’ গ্রামের নামকরণের সাথে ‘শাপলা’ ফুলের কোনো যোগসূত্র আছে কি না, তা সঠিক করে কেউ বলতে পারেন না। সুদীর্ঘকাল থেকে এই বিলে শাপলা ফুটলেও এর শুরুর দিককার ইতিহাস জানেন না কেউই। আরও মজার বিষয় হলো, এই বিলে শুধু শাপলাই ফোটে না, শীতের মৌসুমে বিল যখন প্রায় শুকিয়ে যায়, তখন সব শাপলা মরে যায়, কৃষকরা এখানে ধান চাষ করেন। সাধারণত আগস্ট থেকে অক্টোবরে এই বিলে লাল শাপলা ফুল ফোটে। মাঝে মাঝে কিছু সাদা শাপলাও ফুটতে দেখা যায়।

সাতলার পরিচিতি

বরিশালের এই গ্রামটি বর্তমানে একটি ছোটখাটো পর্যটন এলাকায় পরিণত হলেও এটি একটি বিলের নাম। একসময়ে বর্ষাকালে এটা সম্পূর্ণ ডুবে যেত। জানা যায়, স্বাধীনতার পরে তৎকালীন মন্ত্রী আবদুর রব সেরনিয়াবাত প্রথম সাতলায় বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু করেন। তারপর বিল থেকে বিশাল এলাকা জেগে উঠে বর্তমানে মনোরম এলাকায় পরিণত হয়েছে সাতলা গ্রাম।

কীভাবে ঘুরবেন

সাতলার বিলে ঘুরে লাল শাপলার সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য অবশ্যই নৌকার প্রয়োজন হবে। আগে নৌকা খুব একটা পাওয়া না গেলেও বর্তমানে পর্যটকদের আধিক্যের কারণে এলাকার লোকজনই পারিশ্রমিকের বিনিময়ে আপনাকে নৌকায় ঘোরার ব্যবস্থা করে দেবেন। সামান্য পারিশ্রমিক নিয়েই তারা সাগ্রহে আপনাকে ঘুরিয়ে দেখাবে বিল। নৌকার আকৃতি ও জনসংখ্যা ভেদে ৩০০-৮০০ টাকা পর্যন্ত খরচ হতে পারে।

আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, ঘুরতে বেরোনোর সময় অবশ্যই সঙ্গে ক্যামেরা নিতে ভুলবেন না। কারণ, এমন মনোমুগ্ধকর পরিবেশে ঘুরে বেড়ানোর স্মৃতি ফিরে দেখতে চাইলে ক্যামেরায় তোলা ছবির বিকল্প নেই। ঘুরতে ঘুরতে শাপলার পাতার ওপর দেখা মিলতে পারে ছোট-বড় সাপের। তবে ভয়ের কারণ নেই, আপনি আঘাত না করলে তারাও আপনার কোনো ক্ষতি করবে না। তবে সাবধানে দূরত্ব বজায় রাখাই শ্রেয়।

কখন ঘুরবেন

সাধারণত আগস্টের শেষের দিকে শুরু হয়ে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে এই বিলে লাল শাপলা ফুল ফোটে। আর শাপলার আসল সৌন্দর্য উপভোগের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত সময় হলো ভোর ৫টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত। শাপলার প্রকৃত সৌন্দর্য ও ফুটন্ত অবস্থায় পেতে অবশ্যই এই সময়টাতে আপনাকে ঘুরতে হবে, কারণ সূর্যের উপস্থিতির সঙ্গে সঙ্গে শাপলা তার আপন সৌন্দর্যকে গুটিয়ে নেয়। তাই ফুটন্ত শাপলা পেতে হলে বিলের আশপাশে রাতযাপন করে অবশ্যই খুব ভোরে শাপলার বিলে যেতে হবে।

কোথায় থাকবেন

থাকার জন্য খুব ভালো ব্যবস্থা নেই সাতলায়। তবে আরামদায়ক রাত্রিযাপনের জন্য স্থানীয় লোকজনের সাহায্যে তাদের আশ্রয়ে থাকা যেতে পারে। এতে খুব সকালে শাপলার বিলে ভ্রমণ আপনার জন্য সহজতর হবে। পার্শ্ববর্তী হারতা বাজারে রাতে থাকার জন্য স্বল্পখরচের দুটি হোটেল আছে, তবে সেটা শহুরে লোকজনের জন্য খুব একটা আরামদায়ক হবে না। আরামদায়কভাবে থাকার জন্য অবশ্যই উজিরপুর, পার্শ্ববর্তী উপজেলা বাবুগঞ্জ বা বরিশাল সদরে যেতে হবে। তবে সবচেয়ে ভালো হয় যদি সাতলার স্থানীয় লোকদের মাধ্যমে থাকার ব্যবস্থা করে নিতে পারেন। এমনকি খাওয়া-দাওয়াও সারতে হবে এখানে। অবশ্যই বরিশালের ঐতিহ্যবাহী আতিথেয়তায় আপনি মুগ্ধ হবেন।

কীভাবে যাবেন

ঢাকার সদরঘাট থেকে লঞ্চযোগে পয়সারহাট বা বৈঠাকাটাগামী লঞ্চে হারতায় নেমে খুব সহজে সাতলায় আসতে পারেন। ডেকের ভাড়া জনপ্রতি ২৫০-৩০০ এবং সিঙ্গেল কেবিন ১০০০-১২০০ টাকা। এ ছাড়া ঢাকা-বরিশাল রুটের লঞ্চে বরিশাল শহরে এসে সাতলা যেতে পারেন। নথুল্লাবাদ বাসস্টেশন থেকে ৩০ মিনিট পরপর সরাসরি সাতলার উদ্দেশে বাস ছাড়ে, যেখানে জনপ্রতি ভাড়া ৯০ টাকা। এ ছাড়া বরিশাল থেকে মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার কিংবা থ্রি-হুইলার ভাড়া করেও যাওয়া যায়, এতে ৫০০ থেকে চার হাজার টাকার মতো বাহনভেদে যাওয়া-আসায় খরচ পড়বে। কেউ চাইলে ঢাকা-হুলারহাট-ভাণ্ডারিয়ার এমভি মহারাজ, ফারহান-১০, অগ্রদূত প্লাস, রাজদূত-৭ ইত্যাদি লঞ্চে (ডেকের ভাড়া ২৫০-৩০০ এবং সিঙ্গেল কেবিন ১০০০-১২০০) স্বরূপকাঠি নেমে স্থানীয় ট্রলারযোগে মিয়ারহাট থেকে বৈঠাকাটা-চৌমোহনা হয়ে সাতলা যেতে পারেন। ট্রলারে যাওয়ার জন্য যাতায়াত বাবদ ১৫০০-২৫০০ টাকা লাগবে। কেউ স্থলযোগে বাসে আসতে চাইলে হানিফ, সাকুরা, সোনারতরী বা বিআরটিসি বাসে সরাসরি বরিশাল এসে সাতলার বাসে যেতে পারেন। আর স্বরূপকাঠি পর্যন্ত বাসে আসার জন্য হানিফ, সোনারতরী বা সুগন্ধা পরিবহনে আসতে পারেন।

বাংলাদেশ জার্নাল