শিক্ষাঙ্গন

ভাইরাল ছবিটির পেছনের আসল ঘটনা জেনে নিন

এই একটি ছবি হাজারো চিন্তার জন্ম দেয়। অনেক সময়ই এই ছবির পেছনের গল্পটা হৃদয়বিদারক হতে পারে। সম্প্রতি এক বয়স্ক নারী এবং স্কুল ড্রেস পড়া মেয়ের ক্রন্দনরত ছবিটা ভাইরাল হয়ে গেছে। অনেকেই তাদের পোস্টে বলেছেন, এই বাচ্চা মেয়েটা বৃদ্ধাশ্রমে তার দাদীর সঙ্গে দেখা করে কাঁদছে।

এর আগে সে জানতো না যে তার দাদী বৃদ্ধাশ্রমে থাকেন। তার বাবা-মা মিথ্যা বলেছিলেন। তারা নাকি বলেছিলেন, দাদী এক আত্মীয়ের সঙ্গে থাকেন। অথচ গোপনে তাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসা হয়েছিল। বাবা-মায়ের কাছে এ দুজনের অনাকাঙ্ক্ষিত সাক্ষাৎ ঘটেছে। সেখানে কাঁদছেন দুজন। ছবিটি তুলেছেন কোনো ফটোগ্রাফার।

এমন এক যুগে বাস করছি আমরা, যেখানে সন্তানরা অনায়াসে বাবা-মাকে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসেন। আসল কথা হলো, এই ভাইরাল ছবির পেছনের আসল গল্পটা ঠিক এটা না। বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানায়, এ ছবিটি ২০০৭ সালে তুলেছিলেন কালপিত এস ভাচেচ। যদি এখানে দাদী আর নাতনীর সাক্ষাতই ঘটেছে। কিন্তু বৃদ্ধশ্রম সংক্রান্ত যে তথ্য ছড়িয়েছে তা অন্যরকম।

আসল ঘটনা বের করতে এ দুজনের সঙ্গে দেখা করে বিবিসি’র সাংবাদিক। স্কুল পোশাকে যে মেয়েটা রয়েছে তার নাম ভক্তি। তিনি জানান, এ ছবিটি বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসা এক দাদীর সঙ্গে নাতনীর দেখা হওয়ার বিষয় নিয়ে ভাইরাল হয়েছে। কিন্তু বাস্তবতা হলো, তার দাদী দামইয়ান্তি সেখানে নিজের ইচ্ছাতেই ছিলেন।

দেখা হওয়ার পর আবেগাপ্লুত হয়ে দুজনই কেঁদেছেন। তিনি জানতেন যে তার দাদী নিজের ইচ্ছাতে বৃদ্ধাশ্রমে চলে গেছেন। কিন্তু কোনটাতে ছিলেন তা জানতেন না। সাংবাদিককে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তারা এমনটাই জানিয়েছেন।
ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস