বিশেষ প্রতিবেদন

বিশ্বের সেরা ৭ প্রমোদতরী

সুপার ইয়ট বা প্রমোদতরীর নাম শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে বিশাল এক রাজকীয় জাহাজের ছবি। ধনকুবেরদের একটি বিশেষ শখের বস্তু এই ইয়ট। বর্তমান বিশ্বের বেশিরভাগ বিত্তশালী ব্যক্তিই অবসর যাপনের জন্য একটি ব্যক্তিগত ইয়ট রখতে পছন্দ করেন।

বিশ্বের সেরা ৭ সুপার ইয়টের ওপর একবার চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক:


১. অক্টোপাস
২০০ মিলিয়ন ডলারের (প্রায় ১৬৯৬ কোটি টাকা) এ ইয়টটি মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা পল অ্যালেনের। ২০০৩ সালে নির্মাণ হয় এটি। সামুদ্রিক অনুসন্ধান, বৈজ্ঞানিক গবেষণা ও উদ্ধার কাজের জন্য বিভিন্ন সংস্থার কাছে রাজকীয় জাহাজটি নিয়মিত ধার দেন পল।


২. লেডি মোরা
এর মালিক সৌদি আরবের ব্যবসায়ী নাসের আল-রশিদ। ১৯৯০ সালে নির্মাণ হয় ইয়টটি। জর্জ এইচ ডব্লিউ বুশের মতো বেশ কিছু বিখ্যাত ব্যক্তি এতে অবসর কাটিয়েছেন।


৩. আল মিরকাব
১৩৩ মিটার দৈর্ঘ্যের ইয়টটির মালিক কাতারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী হামাদ বিন জসিম আল থানি। ২০০৮ সালে নির্মিত এ ইয়টে রয়েছে মুভি থিয়েটার, সুইমিং পুল, হেলিপ্যাডসহ নানান সুবিধা।


৪. দিলবার
রাশিয়ান ব্যবসায়ী আলিশের উসমানোভ নিজের মায়ের নামে এই ইয়টটির নাম রাখেন। ১৫৬ মিটারের ইয়টটি দৈর্ঘ্যের দিকে থেকে বিশ্বের সবচেয়ে বড়। এর সর্বোচ্চ গতিবেগ ২২.৫ নট।


৫. আল সাইদ
১৫৫ মিটার দৈর্ঘ্যের এ ইয়টের মালিক ওমানের সুলতান। এতে রয়েছে সুসজ্জিত একটি কনসার্ট হল। এতে ধরবে ৭০ জন অতিথি এবং ১৫০ জন ক্রু।


৬. এক্লিপস
ফুটবল ক্লাব চেলসির মালিক রোমান আব্রামোভিচ ২০০৯ সালে ৮৪৫ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে এই ইয়ট নির্মাণ করেন। বলা হয়, এতে একটি সাবমেরিন ও জার্মানির তৈরি মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম যুক্ত করা আছে।


৭. সেরেনি
২০১৫ সালে ৫৫০ মিলিয়ন ডলারে রাশিয়ান ব্যবসায়ী ইউরি শেফলারের কাছ থেকে এই ইয়টটি কেনেন সৌদির ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। এর আগে সপ্তাহ প্রতি ৫ মিলিয়ন ডলারের বিনিয়মে ইয়টটি ভাড়া নিয়েছিলেন মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস।

সূত্র: বাংলানিউজ