বিনোদন

নিজের মেয়েকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন মহেশ ভট্ট !

এফপি

ডেস্কনিউজ; জনপ্রিয় নির্মাতা ও প্রযোজক মহেশ ভাটের সিনেমা বিভিন্ন সময়ে অসংখ্য কারণে বিতর্কের ঝড় তুলেছে। কিন্তু শুধু ছবি নয়, ব্যক্তিগত জীবনেও তিনি আলোচিত-সমালোচিত। কী ছিল সেসব ঘটনা! ঘাটাঘাটি করলে যা বের হয়ে আসলো, তা অনেকের ধারণার বাইরে।

জন্ম থেকে ঘটনাবহুল হয়ে উঠেছেন মহেশ ভাট। তার পিতা-মাতা কোনও দিন বিয়ে করেননি। তার বাবা ছিলেন হিন্দু সম্প্রদায়ের আর মা ম‌ুসলমান। পরে অবশ্য এসব কারণে বাবার সঙ্গে মহেশের মানসিক দূরত্বও তৈরি হয়।
জীবনে বহু নারীর সঙ্গে প্রেম-সম্পর্কে জড়িয়েছেন মহেশ। কল‌েজ-জীবনে লোরিয়েন ব্রাইট নামের এক মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে মহেশের। পরবর্তী কালে ওই মহিলার নাম পরিবর্তন করে মহেশ নাম রাখেন কিরণ। এই কিরণই মহেশের সন্তান পূজা ভাট এবং রাহুল ভাটের মা।
কিরণের সঙ্গে বিবাহিত জীবনযাপনের সময়েই অভিনেত্রী পারভিন বাবির সঙ্গে প্রেমসম্পর্ক শুরু হয় মহেশের। কিন্তু সে সম্পর্কও বেশিদিন টেকে নি।
এরপর সোনি রাজদানের সঙ্গে জড়িয়ে পড়়েন মহেশ। জন্মগত ভাবে হিন্দু হলেও সোনিকে বিয়ে করবেন বলে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত হন মহেশ। আলিয়া ভাট এবং শাহিন ভাট সোনি রাজদানেরই মেয়ে।
তবে মহেশকে নিয়ে বিতর্কটা তখুনিই ওঠে, একটি জনপ্রিয় ম্যাগাজিনের কভার শ্যুটের জন্য মেয়ে পূজা ভাটকে চুম্বন করার পর। নিবিড় ভাবে চুম্বনরত পিতা-কন্যার এই ছবি পত্রিকার প্রচ্ছদে প্রকাশিত হলে ভারতজুড়ে সমালোচনা শুরু হয়। এ ধরণের আচরণকে ‘অশ্লীলতা’ বলে দাবি করে বিক্ষোভ পর্যন্ত হয়েছে।
তবে মুল বিস্ফরন টা হয় তার কিছু দিন পরেই। এই কাহিনীর কিছুদির পরে একটি পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে মহেশ বলে বসেন, ‘আমি পূজাকে বিয়ে করতে চাই। ও যদি আমার মেয়ে না হতো, তা হলে আমি সত্যিই ওকে বিয়ে করতাম।’ এই মন্তব্যের পরে ওঠে তীব্র সমালোচনা।