লাইফস্টাইল

দূরের ভালোবাসা কত দূর!

বলা হয় যে ” দুরে গেলেই মুল্য বোঝা যায়।”  সম্পর্ক কেমন থাকবে তা এক একটা মানুষের মন-মানসিকতার উপরে নির্ভর করে। কেউ যখন কাউকে কাছে থেকে বুঝতে পারে না তখন দূরত্ব এসে যায়। আবার কারো ক্ষেত্রে এই দূরত্বটাই একে অপরকে কাছে আনে। তাই সম্পূর্ণ মানুষের উপরে নির্ভর করে যে সে কিভাবে তার সম্পর্কটাকে বজায় রাখবে।

অনলাইন ডেটিংয়ে যেমন ফেসবুক এবং স্কাইপ, যা মানুষের যোগাযোগ প্রক্রিয়াকে সহজ করেছে। সম্পর্কগুলিকে করেছে আগের তুলনায় সাধারণ। কিন্তু সম্পর্কে ‘দূরত্ব’ কি প্রভাব ফেলে? একটি সম্পর্কের মধ্যে ‘দূরত্ব’ কতোখানি গুরুত্বপূর্ণ? চলুন জেনে নেয়া যাক-

১. সঙ্গীর অনুপস্থিতি আপনার ভালোবাসার অনুভুতি বাড়াবে:
যখন আপনি সঙ্গীর অনুপস্থিতি অনুভব করবেন, তখন আপনি পাগল প্রেমিক হয়ে যাবেন। আপনি চারপাশে তাদের মূল্য উপলব্ধি করতে শুরু করবেন যা অনুভূতিগুলোকে শক্তিশালী করবে।

২. দূরত্ব সঙ্গীকে দেখার জন্য অস্থির করবে:
এখন ভিডিও কলিংয়ে একে অপরকে দেখা যায়। তখন আপনি তাদের তীব্রভাবে অনুভব করেন। একে অপরকে দেখার প্রচণ্ড আকাঙ্ক্ষা সৃষ্টি হয়।

৩. ভালোবাসার মানুষটির সাথে কাটানো সময়ের মূল্য বুঝাবে:
প্রিয় ব্যক্তিটির সাথে অতিবাহিত প্রতিটি মুহুর্ত কতোটা মূল্যবান ছিল তা বুঝতে পারবেন। তার সঙ্গে কাটানো সময়গুলি নিজের মধ্যে ধারণ করবেন।

৪. নিজেকে বুঝতে দূরত্ব:
আপনি যে জিনিসগুলি উপভোগ করেন এবং আপনার সঙ্গী ছাড়া যে বিষয়গুলো উপভোগ করেন না, এসব বিষয়গুলি আপনি বুঝতে পারবেন। দূরত্ব আপনার নিজের সম্পর্কে আরো জানতে সাহায্য করবে।

৫. আস্থা ও বিশ্বাস বৃদ্ধি:
যখন বন্ধন শক্তিশালী হয়, কোন সন্দেহ সে বন্ধন ভাঙ্গতে পারে না। তখন সম্পর্কে গভীর বিশ্বাস স্থাপন করতে পারবেন। দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্কের জন্য বিশ্বাস সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

ভালোবাসা যখন নিঃশর্ত, দূরত্ব কোন ব্যাপার না।