বিনোদন

তারকারা মামলায় জড়াতে চান না

এ পর্যন্ত বেশ কয়েকজন তারকা এসেছেন আমার কাছে—ওমর সানী, জাহিদ হাসান, মেহজাবীন, রেদওয়ান রনি প্রমুখ। সবাই আমাদের সেবা পেয়েছেন। অ্যাকাউন্ট হ্যাক্ড হলে সেটা কখন উদ্ধার হবে তা নির্ভর করে ফেসবুকের মর্জির ওপর।

অভিযোগ পেলে আমরা ফেসবুক অথরিটির সঙ্গে যোগাযোগ করি। কিছুদিন আগে অভিনেতা অমিত হাসান এসেছিলেন, তাঁর মেয়ের ফেসবুক আইডি হ্যাক্ড হয়েছিল। অ্যাকাউন্ট উদ্ধার করার পরও ডি-অ্যাকটিভেটেড। সমস্যা মেটাতে পেরেছিলাম।

কিছু আইডি খুব দ্রুত উদ্ধার করা যায়, অনেক সময় দু-তিন মাসও লেগে যায়, আবার কিছু আইডি ফেরত পাওয়া সম্ভব হয় না—তিন ধরনের অভিজ্ঞতাই আমার হয়েছে। এ পর্যন্ত অনেক হ্যাকারকেই ধরেছি, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নিয়েছি। তবে হ্যাকারদের ধরে শাস্তি দেওয়া অনেকের উদ্দেশ্য থাকে না, আইডিটা ফেরত পেলেই হয়। তাঁরা এভাবেই এসে অভিযোগ করেন।

লিখিত অভিযোগ না পেলে আমরা কিছু করতে পারি না। অনেক তারকাই চান না এসব মামলায় জড়াতে। তবে তাঁরা যদি মামলা করেন, আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেব। শুনলাম সেদিন অভিনেতা আরিফিন শুভসহ বেশ কয়েকজনের আইডি হ্যাক্ড হয়েছে। শুভ আইডি ফিরে পেয়েছেন। শুভ এখন আমেরিকায়, তিনি দেশে ফিরে যদি আমাদের কাছে অভিযোগ করেন, আমরা অবশ্যই হ্যাকারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।