জাতীয়

এরশাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের প্রত্যাশিত উন্নতি হচ্ছে না : জিএম কাদের

– সংগৃহীত

জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলেছেন, সাবেক রাষ্ট্রপতি, বিরোধী দলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। তবে চিকিৎসকদের সার্বিক মূল্যায়নে এরশাদের শারীরিক অবস্থা আশংকামুক্ত নয়। বর্তমানে তার রক্তে সংক্রমণ নেই বললেই চলে। কিন্তু শরীরের অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের প্রত্যাশিত উন্নতি হচ্ছে না।

শনিবার দুপুরে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী অফিসে এরশাদের শারীরিক অবস্থার বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের তিনি এসব কথা জানান। এসময় উপস্থিত ছিলেন পার্টির মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, সুনীল শুভরায়, এস.এম. ফয়সল চিশতী, এটিইউ তাজ রহমান, এ্যাড. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, উপদেষ্টা ড. নুরুল আজহার, ভাইস চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নুরু, শফিকুল ইসলাম শফিক, যুগ্ম-মহাসচিব নুরুল ইসলাম ওমর, সুলতান আহমেদ সেলিম, সুলতান মাহমুদ, এম.এ. রাজ্জাক খান প্রমুখ।

জিএম কাদের বলেন, ২৬ জুন সকালে রক্তের সংক্রমণ নিয়ে পল্লীবন্ধু সিএমএইচ-এ ভর্তি হয়েছিলেন। ডায়ালাইসিস দিয়ে পল্লীবন্ধুর রক্তের বর্জ্য বের করা হচ্ছে। তিনি এখনো শারীরিকভাবে চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারছেন এবং সুস্থ হয়ে ওঠা পর্যন্ত লাইফ সার্পোটে পল্লীবন্ধুর চিকিৎসা চলবে। তিনি এরশাদের রোগমুক্তি এবং সুস্থতা কামনায় দেশবাসীর দোয়া প্রার্থনা করেছেন।

মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি বলেন, দেশের দশটির অধিক জেলা বন্যা কবলিত। বন্যার্ত লাখো মানুষ সীমাহীন কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন। এরশাদ সুস্থ থাকলে এমন দূর্যোগে ত্রাণ নিয়ে বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াতেন। তিনি জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিয়ে বলেন, সমস্ত শক্তি দিয়ে দূর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ান। বন্যার্ত মানুষের পাশে প্রয়োজনীয় সাহায্য দিতে সরকারের প্রতিও আহবান জানান তিনি।