এক্সক্লুসিভ সংবাদ

‘আমি মরে গেলেও আর কষ্ট থাকবে না’, প্রধানমন্ত্রীর অর্থসহায়তা পেয়ে ড্যানি রাজ

ছবি সংগ্রহীত

ভুবনবাংলা বিনোদন ডেস্ক : প্রায় দুই শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন বাংলা চলচ্চিত্রের খল অভিনেতা ড্যানি রাজ। ‘সোনিয়া’ চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন এই খল অভিনেতা। এই ছবিতে অভিনয় করে ছিলেন নাঈম-শাবনাজ। এরপর একে একে অসংখ্যা সুপার ডুপার চলচ্চিত্রে খল চরিত্রে তিনি অভিনয় করেছেন। সালমান শাহ, ওমর সানি, শাকিব খানসহ পুরাতন নতুন সব শিল্পীর সঙ্গেই তিনি কাজ করেছেন। নায়ক মান্নার সঙ্গে ‘কষ্ট’ এছাড়া‘কে অপরাধী’‘প্রাণের চেয়ে প্রিয়’ ‘ভালোবাসি তোমাকে’ ‘মাতৃভূমি’ ‘প্রেমের জ্বালা’সহ অসংখ্যা ছবিতে তিনি অভিনয় করেন।

বর্তমানে ড্যানি রাজ হার্টের অসুস্থতায় ভুগছেন। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী তার সে আবেদনে সাড়া দিয়ে রবিবার তার হাতে ২০ লক্ষ টাকার চেক তুলে দেন। স্বল্প সময়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর এমন সহযোগিতা পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে যান ড্যানি রাজ।

তিনি বলেন, ‘আমি মরে গেলেও আর কষ্ট থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী আমার গায়ে হাত দিয়ে আমাকে শান্তনা দিল। তার ভালোবাসা মাখা আদর পেয়ে আমি সুস্থ হয়ে গেছি। প্রতিদিন আমার কাছে মনে হতো আমি আর বাঁচবো না। তার সঙ্গে কথা বলে আমার সব যেন দূর হয়ে গেছে। তিনি শুধু টাকা নয়, আমার চিকিৎসারও পুরো দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনি আমাকে বাঁচার আলো দেখিয়েছেন। আল্লাহ যেন আমার জীবন নিয়ে তার হায়াত বাড়িয়ে দেন। এই কামনা করি।’

‘এই ২০ লাখ টাকা আমার কাছে ২০ কোটি টাকার চেয়েও বেশি’ বলেন ড্যানি রাজ।

সিনেমায় প্রথম অভিনয় সম্পর্কে জানতে চাইলে ড্যানি রাজ বলেন, ‘১৯৯২ সালে ‘সোনিয়া’ সিনেমাতে অভিনয়ের মাধ্যমে কাজ শুরু করি। প্রথম ছবিতে আমি পেয়েছিলাম ৫ হাজার টাকা। এই টাকা হাতে পাওয়ার পর আমি কেঁদে ফেলেছিলাম। পরে সবাইকে এই টাকা দিয়ে মিষ্টি কিনে খাওয়াই।’

কিভাবে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ হলো জানতে চাইলে ড্যানি বলেন, আমি যখন খুব অসুস্থ হয়ে যাই, কোনো পথ খুঁজে পাচ্ছিলাম না তখন এক জনের মাধ্যমে শিল্পী ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক জি এম সৈকত এর সঙ্গে যোগাযোগ করি। তিনি আমাকে কাজের যাবতীয় তথ্য দিতে বললেন। এরপর একটি ফাইল রেডি করে একমাস আগে সেটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়। স্বল্প সময়ে আমার অবস্থা বিবেচনা করে আমাকে এই সহযোগিতা দেওয়া হয়। এ জন্য শিল্পী ঐক্যজোটের কাছে আমি চিরঋণী। এর সভাপতি ডি এ তায়েবের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা। যতদিন আমি বেঁচে থাকি তাদের সঙ্গে কাজ করে যেতে চাই।

সূত্র : একুশে টিভি অনলাইন