খেলাধুলা

আমি কী অযোগ্য?: মিডিয়াকে প্রশ্ন ম্যারাডোনার

আর্জেন্টিনার পরবর্তী কোচ কে হবে তা নিয়ে বিস্তর জল্পনা। বিস্তর আলোচনা চারপাশে। একের পর এখ নামে আলোচনায় আসছে। কিন্তু একবারও ম্যারাডোনার নাম বলছেন না কেউ। তিনি আর্জেন্টিনার সর্বকালের সেরা ফুটবলারদের একজন। দেশকে ১৯৮৬ বিশ্বকাপ জিতিয়েছেন অধিনায়ক হিসেবে। এমন একজন ফুটবল কিংবদন্তিকে দেশের পরবর্তী কোচ হিসাবে আমল দিচ্ছে না আর্জেন্টিনার সংবাদমাধ্যম।

কেন তাকে পাত্তা দিচ্ছে না সে দেশের মিডিয়া? এই নিয়েই ম্যারাডোনা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সোশ্যাল সাইটে দীর্ঘ এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, জাতীয় দলের প্রতি পূর্ণ সম্মান রেখে বলছি, কিছু সাংবাদিক যে আমাকে আর্জেন্টিনার সম্ভাব্য কোচের মধ্যে রাখে না, এতে আমি খুব বিরক্ত। শাভো ফাকসের (আর্জেন্টিনার স্বনামধন্য ক্রীড়া সাংবাদিক) কথাই ধরুন। উনি তো কখনোই আমার নাম সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে রাখছেন না। আমি ওনার সাংবাদিকতা ক্যারিয়ারের শুরু থেকে ওনাকে চিনি। তখন আমি খেলি। উনি তখন আমাকে আমল দিতেন। আর আজ এমন ভান করছেন যেন আমাকে চেনেনই না।

ম্যারাডোনা ২০১০ বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে দলকে নিয়ে গিয়েছিলেন কোনো ক্রমে। তারপর কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানির কাছে আর্জেন্টিনা হজম করেছিল ৪ গোল! অথচ সেটাই ছিল লিওনেল মেসির সেরা সুযোগ। মেসি তখন ক্যারিয়ারের সবচেয়ে সেরা সময় কাটাচ্ছিলেন।

আর্জেন্টিনা অবশ্য বিশ্বকাপে ভালোই খেলছিল। গ্রুপ পর্বে সর্বোচ্চ ৭ গোল করেছিল। দ্বিতীয় রাউন্ডে মেক্সিকোকে দিয়েছিল ৩ গোল। কিন্তু কঠিন প্রতিপক্ষের সামনে পড়তেই ম্যারাডোনার আর্জেন্টিনা মুখ থুবরে পড়েছিল।

তবে কোচ ম্যারাডোনার পরিসংখ্যান কিন্তু একেবারেই ভাল নয়। আর্জেন্টিনা জাতীয় দল ছাড়াও চারটি ক্লাবের কোচ ছিলেন তিনি। কোথাও বেশিদিন টেকেননি। সংযুক্ত আরব আমিরাতের ক্লাব আল ওয়াসল থেকে এক বছরের মাথায় ছাঁটাই হয়েছিলেন ২০১২তে। গত বছর আবার আমিরাতের দ্বিতীয় বিভাগের ক্লাব আল ফুজাইরার দায়িত্ব নেন। কথা ছিল, দলকে প্রথম বিভাগে তুলে আনতে হবে। পারেননি। ফলে আবারও ছাঁটাই।

ম্যারাডোনা আপাতত বেলারুশের ক্লাব ডায়নামো ব্রেস্তের চেয়ারম্যান হিসেবে তিন বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ। তবে তিনি আবার আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের দায়িত্ব চান। এমনকি বিনা বেতনে হলেও ভালোবাসা থেকে কাজটা করতে রাজি আছেন বলে ক’দিন আগে জানিয়েছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here