আর্ন্তজাতিক

‘আমাকে বিচার করার সোনম কে?’, বিকাশ বহেল ইস্যুতে বিস্ফোরক কঙ্গনা

ডেস্ক রিপোর্ট : নানা পাটেকরের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তুলেছেন তনুশ্রী দত্ত। তারপর থেকেই একে একে প্রকাশ্যে আসছে শ্লীলতাহানির ঘটনা। তনুশ্রীর পরই এই একই ইস্যু নিয়ে মুখ খোলেন কঙ্গনা রানাউত। এখন সেই নিয়ে বিতর্ক বলিউডে।

কঙ্গনা জানিয়েছেন ‘কুইন’ ছবির সময় বিকাশ বহেল তাঁর যৌন হেনস্তা করেন। বলেন, ”একদিন শুটিং শেষ হওয়ার পর বিকাশ আমাকে জড়িয়ে ধরে। কাঁধে ও গলায় হাত বোলাতে থাকে। এমনকী আমার পোশাকের ভিতরেও হাত দেওয়ার চেষ্টা করে সে।” কঙ্গনার এই বক্তব্যেরই বিরোধিতা করেছেন সোনম। বলেছেন, “কঙ্গনা অনেক ভুলভাল কথা বলে। কখনও কখনও ওকে বিশ্বাস করাই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। ওর সাহস আমি পছন্দ করি। ও ওটাই বলেছে, যা ও নিজে বিশ্বাস করে। এর জন্য আমার সম্পূর্ণ শ্রদ্ধা রয়েছে।” সোনমের এই বক্তব্যেই চোটেছেন কঙ্গনা। তিনি সরাসরি আক্রমণ করেছেন সোনমকে। বলেছেন, “আমি আমার #MeToo স্টোরি শেয়ার করেছি। ওকে কে অধিকার দিল আমাকে বিচার করার?”

তবে বিকাশ বহেলের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ। ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন তিনি। লিখেছেন, ঘটনার সময় তাঁরা বিকাশকে প্রোডাকশন হাউজে ঢুকতে দেননি। তার সই করার অধিকারও সাসপেন্ড করা হয়েছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও তিনি নিজের ঘাড়েই টেনে নিয়েছেন দোষ। এই নিয়ে টুইটও করেছেন অনুরাগ।

তবে কঙ্গনা কিন্তু অভিযোগে শুধু নিজের কথাই বলেননি। তিনি বলেন, আরও দুই তরুণীরও শ্লীলতাহানি করেন বিকাশ। শুটিং চলাকালীন ওই সেটে থাকা দুই তরুণী কঙ্গনাকে জানান, বিকাশ বেহেল তাঁদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে। যৌন হেনস্তা করার চেষ্টা করেছে। ওই দুই তরুণীর কথা বিশ্বাস করেন কঙ্গনা। বিকাশকে এ বিষয়ে জানানও তিনি। যদিও অভিযোগ খারিজ করে দেন বিকাশ। কিন্তু বিকাশের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে ওই দুই তরুণীর মতো তিনিও একই পরিস্থিতির মুখোমুখি হন বলেও অভিযোগ কঙ্গনার। এমনকী, অভিনেত্রী এও বলেন, ”প্রথমে ওই দুই তরুণী ও পরে নিজের সঙ্গে ঘটা যৌন হেনস্তার প্রতিবাদ করায় বিকাশ আমার সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দেয়। নতুন কোনও কাজে আমাকে রাখেনি।”