খেলাধুলা

আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে যেভাবে ৫- এ উঠার হাতছানি বাংলাদেশের!

২০১৯ আইসিসি বিশ্বকাপ আসর ইংল্যান্ডে বসবে। বিশ্বকাপ আসরের আগেই যদি বাংলাদেশ আইসিসি ওডিআই র‌্যাঙ্কিংয়ে ৫ নম্বর তালিকায় চলে আসে? তাহলে কেমন হয়? দুর্দান্ত অবশ্যই, কারণ বিশ্বকাপ আসরে ৫ নম্বর দল হিসেব নিজেদের উপস্থাপন করা বিশাল ব্যাপার বটেই।

এটা এখন আর কল্পনা নয়, বরং বাস্তবতার সঙ্গে মিশে গেছে। বাংলাদেশ ক্রিকেট এখন সে পথেই হাটছে, শুধু ভূল গুলো থেকে শিক্ষা নিয়ে মাঠে তা কার্যকর করলেই বাংলাদেশ আগামী বছর জুনের আগে র‌্যাঙ্কিংয়ে ৫ নম্বরে যাওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। অনেকই বলতে পারে এটা অবাস্তব, কিন্তু বাংলাদেশ দলের পয়েন্ট রেটিং আর আগামী চার মাস আন্তজাতিক ওডিআই সিডিউল দেখলেই বাস্তবতা সামনে চলে আসবে।

আইসিসির ওডিআই র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ ৯১ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ৭ম দল, ১০০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে অস্ট্রেলিয়া এখন ৬ নম্বর তালিকায় আর পাকিস্তান ৫ নম্বরে আছে ১০৪ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে। ৭৭ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শ্রীলংকা ৮ম দল। আপাতত দৃস্টিতে ৬ষ্ঠ স্থান দখলে যেতে মাশরাফিদের দরকার ৯ পয়েন্ট আর ৫ স্থানে যেতে দরকার মোট ১৩ পয়েন্ট। বাংলাদেশের সামনে এশিয়া কাপ ২০১৮ আসর সেপ্টেম্বরে।

১৫ সেপ্টেম্বর দুবাইতে বি গ্রুপে বাংলাদেশ উদ্বোধনী ম্যাচে র‌্যাঙ্কিংয়ের ৮ম দল শ্রীলংকার বিপক্ষে আর ২০ সেপ্টেম্বর ১০ দল আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামবে। এই দুই ম্যাচে জয় আসবে ধরে নিলে ৪ পয়েন্ট। অপর দিকে অক্টোবরে মাশরাফিরা ৩ ম্যাচের ওডিআই সিরিজ খেলবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নিজেদের ঘরের মাঠে। স্বাভাবিক ভাবেই জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করার কথা মাথায় আনাটা অকল্পনীয় কিছু না। কারণ বাংলাদেশ হোম গ্রাউন্ডে ওডিআই ম্যাচে কতটা ভয়ঙ্কর তাতো বিশ্ব ক্রিকেট বিগত বছর গুলোতে দেখেছে। তাছাড়া বিদেশে সিরিজ জয় করতে পারলে দুবাইতে এশিয়া কাপে আর ঘরের মাঠে হোম সিরিজে জিম্বাবুয়ে আর উইন্ডিজকে হারানোটা তো বড় কোন ঘটনা নয়।

এশিয়া কাপে দুই ম্যাচে , অপর দিকে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩ ম্যাচে জয় পেলে রেটিং পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়াবে ৫ ম্যাচে ১০, আর এরপর নভেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঘরের মাঠেই ৩ ম্যাচের ওডিআই সিরিজে যদি ধরে নেয়া যায় ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জয়, তাহলে দুই ম্যাচে আরো ৪ পয়েন্ট। তাহলে মোট ৭ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট মাশরাফিদের র‌্যাঙ্কিংয়ে যোগ হয়ে যাবে, সেক্ষেত্রে ৯১ সঙ্গে ১৪ যোগ দিলে দাঁড়ায় ১০৫! আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে ৫ স্থানে যাওয়াটা তাহলে কল্পনা নয়, বাস্তবে রূপ নিতে পারে যদি বাংলাদেশ নিজেদের সেরাটা খেলতে পারে।